সোমবার, ১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ -|- ৩রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ-বর্ষাকাল -|- ১১ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি
hridoyechattogram.com - news@hridoyechattogram.com - www.facebook.com/hridoyechattogram/

লোহাগাড়ায় প্রধান শিক্ষককে সাময়িক বহিষ্কার করাই শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

প্রকাশিত হয়েছে- শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

এরশাদ আলম, লোহাগাড়া, চট্টগ্রাম।

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আধুনগর রশিদেরঘোনা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ও শিক্ষকদের মাঝে চলছে তুমুল টানাহেঁচড়া। এ নিয়ে দুই দিন থেকে ক্লাস বর্জন করছে শিক্ষার্থীরা। দুশ্চিন্তায় দিনাতিপাত করছে অভিভাবকরা। অবিলম্বে বিরোধ নিরসনের দাবী সচেতন মহলের।

জানা যায়, ২৯ আগস্ট সকালে বিদ্যালয়ের সভাপতির অনুমোদনে স্বামী আকস্মিকভাবে বিদ্যালয় পরিদর্শনে এসে নানান অনিয়মের কথা বলে অভিযোগ সৃষ্টি করে প্রধান শিক্ষককে বহিষ্কারপত্র প্রদান করেন এবং স্কুলে আসতে বারণ করেন। এ খবর শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে পড়লে পরদিন স্কুলে ক্ষোভ ও উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করেন। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত এ আন্দোলন চলমান রাখেন শিক্ষার্থীরা। এমন অবস্থায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করতে ঘটনাস্থলে যান উপজেলা ও থানা পুলিশ। তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসেন।

এরপর বিদ্যালয় হল রুমে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহ্জাহান, উপজেলা শিক্ষা অফিসার নুরুল ইসলাম, থানা অফিসার ইনচার্জ রাশেদুল ইসলাম, আধুনগর ইউপি চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দীন ও স্থানীয় ইউপি সদস্য ফরিদ আহমদসহ রিচালনা কমিটির সদস্যবৃন্দ ও স্থানীয় মান্যগণ্য ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে একটা বৈঠক করেন। তারা শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের দ্রুত এ সমস্যার সমাধান দেয়ার আশ্বাস দেন।

এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার নুরুল ইসলাম জানান, প্রধান শিক্ষককে বহিষ্কার পদ্ধতি যথাযথ হয়নি। যার দরুন প্রধান শিক্ষক তার পূর্ববর্তী পদে বহাল থাকবেন। উত্তেজিত শিক্ষার্থীদেরকে ক্লাসে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কমিটির অন্যান্য সদস্যরা জানান, “সভাপতি মহোদয় আমাদের এলাকার একজন সম্মানিত ব্যক্তি। তিনি আমাদেরকে না জানিয়ে হঠাৎ নিজেই প্রধান শিক্ষককে সাসপেন্ড করে আমাদেরকে বেকায়দায় ফেলেছেন।” তারা আরও বলেন, “স্থানীয় কিছু কুচক্রী মহলের কানাঘুষায় এ জটিল বিরোধের সৃষ্টি হয়। স্কুলের শিক্ষক শহীদুল্লাহর সাথে প্রধান শিক্ষক বজলুর রহমানের সাথে সামাজিক খুঁটিনাটি বিষয়কে কেন্দ্র করে বিরোধের সৃষ্টি হয়।

এদিকে স্কুলের একাধিক ছাত্র-ছাত্রী প্রতিবেদককে জানান, “স্কুলের অবকাঠামোগত উন্নয়ন নয়, আমরা চাই বিদ্যালয়ের পড়ালেখার উন্নত মান এবং সবার মাঝে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক।

বিদ্যালয় সভাপতির স্বামী সাবেক মেজর জেনারেল রুকনুদ্দৌলা জানান, “প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্থানীয় কিছু ব্যক্তি এবং অভিভাবক বিভিন্ন অনিয়ম ও অনৈতিকতার অভিযোগ করেন। এরই ভিত্তিতে সভাপতি তথা আমার স্ত্রী অসুস্থ থাকায় তার অনুমোদনক্রমে প্রধান শিক্ষককে বহিষ্কার করা হয়েছে।